প্রাণের ৭১

বুধবার, এপ্রিল ১০th, ২০১৯

 

দাদির কবরের পাশে চিরনিদ্রায় শায়িত করা হবে নুসরাতকে

নুসরাত জাহান রাফিমাদ্রাসাছাত্রী নুসরাত জাহান রাফিকে সমাহিত করা হবে পারিবারিক কবরস্থানে। দাদির কবরের পাশেই হবে তার শেষ শয্যা। নুসরাতের চাচা নুরুল হুদা শামীম বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘এখন পর্যন্ত পারিবারিক সিদ্ধান্ত অনুযায়ী আগামীকাল (বৃহস্পতিবার, ১১ এপ্রিল) বাদ আসর সোনাগাজী সাবের পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে জানাজা হবে। জানাজা শেষে দাদির কবরের পাশে তাকে সমাহিত করা হবে।’   নুসরাত জাহান রাফির লাশ বুধবার দিবাগত রাতে মর্গে রাখা হবে। বৃহস্পতিবার সকালে তার ময়নাতদন্ত করা হবে। এরপর মরদেহ ফেনীতে নিয়ে যাওয়া হবে বলে জানিয়েছেন ঢামেক বার্ন ইউনিটের সমন্বয়ক ডা. সামন্ত লাল সেন।      আরো পড়ুন


আজ বৃহস্পতিবার ফটিকছড়ির ভুজপুর হত্যাকান্ডের ৭ বছর ।

আজ বৃহস্পতিবার ফটিকছড়ির ভুজপুর হত্যাকান্ডের ৭ বছর ।   ২০১৩ সালের ১১ এপ্রিল আওয়ামীলীগ,যুবলীগ, সেচ্ছাসেবক লীগ, ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীরা জামায়াত শিবিরের বিরুদ্ধে হরতাল বিরোধী শোভাযাত্রা বের করে।   এ শোভাযাত্রাটি দক্ষিণ ফটিকছড়ি থেকে উত্তর ফটিকছড়ি ভুজপুর কাজীরহাট বাজার প্রদক্ষিণ করতেই জামাত- জঙ্গীরা মসজিদের মাইকে মিথ্যা গুজব রটিয়ে শোভাযাত্রার উপর নারকীয় হত্যাকান্ড চালিয়ে সেচ্ছাসেবক লীগ নেতা ফারুক হোসেন বিপুল, যুবলীগ নেতা মোহাম্মদ রুবেল ও মোহাম্মদ ফোরকানকে হত্যা করে।   এতে প্রায় দু’,শতাধিক নেতা- কর্মীকে আহত করে এবং তিন শতাধিক মটর সাইকেল ও যানবাহনে অগ্নিকান্ড দিয়ে পুডিয়ে দেয়।


রাফির খাতাতে লিখে গেছেন: আমি লড়বো, শেষ নিঃশ্বাস পর্যন্ত

ফেনীর সোনাগাজী ইসলামিয়া ফাজিল ডিগ্রি মাদরাসার লম্পট অধ্যক্ষ সিরাজ উদদৌলার হাতে যৌন হয়রানির পর সহপাঠি দুই বান্ধবীর উদ্দেশ্যে আবেগঘন চিঠি লিখেছিলো নুসরাত জাহান রাফি। সেই লেখা চিঠি তার খাতা থেকে উদ্ধার করা হয়েছে। এতে রাফি লিখেছে, ‘আমি লড়বো, শেষ নিঃশ্বাস পর্যন্ত।’   মঙ্গলবার দুপুরে বাড়ি থেকে এগুলো উদ্ধার করেছে সোনাগাজী মডেল থানা পুলিশ। চিঠিতে দিন-তারিখ লেখা না থাকলেও বিষয়বস্তু বিবেচনায় এটি দগ্ধ হওয়ার কয়েকদিন আগের লেখা বলে মনে করছে তদন্তকারীরা।   ওই সূত্র জানায়, তার পড়ার টেবিলে খাতায় দুই পাতার ওই চিঠিতে তামান্না ও সাথী নামের দুই বান্ধবীকে উদ্দেশ্য করেআরো পড়ুন


যৌন নিপিড়নের প্রতিবাদকারী মাদ্রাসা ছাত্রী নুসরাত মারা গেছে।

যৌন নিপীড়নের প্রতিবাদের কারণে গায়ে কেরোসিন ঢেলে পুড়িয়ে দেওয়া ফেনীর মাদ্রাসাছাত্রী নুসরাত জাহান রাফি মারা গেছেন।   পাঁচ দিন ধরে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে চিকিৎসাধীন ছিলেন নুসরাত। প্রধানমন্ত্রী চিকিৎসার জন্য তাকে সিঙ্গাপুরে নেওয়ার নির্দেশ দিলেও শারীরিক অবস্থার কারণে তা সম্ভব হচ্ছিল না।   বুধবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে তাকে মৃত ঘোষণা করেন ঢাকা মেডিকেলের বার্ন ইউনিটের সমন্বয়ক সামন্ত লাল সেন।


বরগুনায় শিশু ছাত্রীকে ধর্ষণকারী মাদ্রাসা শিক্ষক আটক

বরগুনায় মাদ্রাসা ছাত্রী ধর্ষণ মামলার প্রধান আসামি মাদ্রাসা শিক্ষক সাইফুল ইসলামকে পলাতক থাকা অবস্থায় গ্রেফতার করেছে র‌্যাব। অভিযুক্ত সাইফুল স্থানীয় সাহেবের হাওলা রফেজিয়া দাখিল মাদ্রাসার শরীর চর্চা বিষয়ের শিক্ষক। আজ বৃহস্পতিবার (২১ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানায় র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব)-০৮।   র‌্যাব সূত্র জানায়, গোপন তথ্যের ভিত্তিতে বুধবার (২০ ফেব্রুয়ারি) রাত সাড়ে ১১টার দিকে বরিশালের বাকেরগঞ্জ উপজেলায় একটি চেকপোস্ট স্থাপন করে র‌্যাব-০৮। ২১ ফেব্রুয়ারি রাত সাড়ে ১২টার দিকে র‌্যাবের চেকপোস্ট দেখে সাইফুল দৌড়ে পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করলে র‌্যাব সদস্যরা তাকে ধাওয়া করে আটক করতে সক্ষম হয়।আরো পড়ুন


দুই হাত ও কাটেন মসজিদের ইমাম।

মসজিদের সিঁড়িতেই মনিরকে শ্বাসরোধে হত্যা করেন অধ্যক্ষ

রাজধানীর ডেমরায় মাদ্রাসাছাত্র মনির হোসেন (৮) অপহরণের পর হত্যায় জড়িত সন্দেহে তিনজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। গ্রেফতার ব্যক্তিদের মধ্যে মনিরের মাদ্রাসা নূরে মদিনার অধ্যক্ষও রয়েছেন।   গ্রেফতারকৃতরা হলেন- অধ্যক্ষ আবদুল জলিল হাদী ওরফে হাদিউজ্জামান, দুই শিক্ষার্থী আকরাম হোসেন ও আহমদ শফী ওরফে তোহা।   গ্রেফতারকৃতরা প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জানিয়েছেন, অপহরণের পর মনিরকে মসজিদের সিঁড়িতেই শ্বাসরোধে হত্যা করেন মাদ্রাসার অধ্যক্ষ আবদুল জলিল হাদী। এ সময় তার সঙ্গে আকরাম হোসেন ও আহাম্মদ শফি ওরফে তোহা ছিলেন।   এর পর মনিরের লাশ বস্তায় ভরে সিঁড়ির পাশে রেখে দেন তারা। শুধু তাই নয়, মনিরকে হত্যার পরআরো পড়ুন


মিরসরাই ইয়ুথ ফোরামের উদ্যোগে এতিম ও অসহায় শিক্ষার্থীদের মাঝে বস্ত্র বিতরণ ২০১৯।

মিরসরাই ইয়ুথ ফোরামের উদ্যোগে এতিম ও অসহায় শিক্ষার্থীদের মাঝে বস্ত্র বিতরণ ২০১৯। মিরসরাই ইয়ুথ ফোরাম কর্তৃক এতিম ও অসহায় শিক্ষার্থীদের মাঝে বস্ত্র বিতরণ করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার ১৪ই মার্চ উপজেলার তিনটি মাদ্ররাসায় ষাট জন এতিম ও অসহায় শিক্ষার্থীর মাঝে এ বস্ত্র বিতরণ করা হয়। এ সময় সংগঠনের সহ- সভাপতি আরিফুল রহমান, কার্যনির্বাহী সদস্য দিদারুল আলম,মোস্তাফিজুর রহমান,টিপু,আলী হায়দার উপস্হিত ছিলেন।   সংগঠনের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি, আরশাদ নূর জানান, আমাদের এ সংগঠনের তিন বছর চলমান, ইউএইতেও আমরা নিবন্ধিত ১০০জন যুবক একসাথে হয়েছি, আমাদের দায়িত্বর জায়গা থেকে মিরসরাই উপজেলাতে আমরা সবাই এক সঙ্গে সমাজের জন্যআরো পড়ুন