Main Menu

বগুড়ায় বিএনপি নেতাকে কলারধরে পিটালেন ফখরুল।

বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের সঙ্গে বগুড়া জেলা বিএনপির সভাপতি ভিপি সাইফুল ইসলামের বাকবিতণ্ডা হয়েছে। এক পর্যায়ে মির্জা ফখরুল ভিপি সাইফুলের জামার কলারও ধরেন। বগুড়া জেলা বিএনপির সিনিয়র নেতা-কর্মীরা নাম প্রকাশ না করার শর্তে জানান, গতকাল দুপুরে মির্জা ফখরুল ঠাকুরগাঁও থেকে ঢাকায় ফেরার পথে বগুড়ার হোটেল মম ইন-এ যাত্রা বিরতি করেন। সেখানে সদর উপজেলা বিএনপির আয়োজনে মতবিনিময় সভার আয়োজন করা হয়।

প্রসঙ্গত, এর আগে মহাসচিবের সিংহভাগ অনুষ্ঠানই জেলা বিএনপির উপদেষ্টা শোকরানার মালিকানাধীন হোটেল নাজ গার্ডেনে হয়েছে। কিন্তু বিভিন্ন কারণে হোটেল নাজ গার্ডেনে অনুষ্ঠানটি না করে এবার হোটেল মম ইন-এ করা হয়। এরই জের ধরে মতবিনিময় সভার জন্য মম ইন হোটেলের লিফটে করে ৭ তলায় ওঠার সময় জেলা বিএনপির সভাপতি ভিপি সাইফুল ইসলাম ‘এ আয়োজনের বিষয়টি জানেন না’ বলে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরকে বলেন। এ কথায় মির্জা ফখরুলের সঙ্গে সাইফুল এবং জেলা বিএনপির সিনিয়র নেতা-কর্মীদের বাকবিতন্ডা শুরু হয়। এক পর্যায়ে মির্জা ফখরুল সাইফুল ইসলামের জ্যাকেটের কলার ধরেন। এ নিয়ে হৈচৈ শুরু হয়। এতে অনেকেই বিব্রত বোধ করেন। তবে খবরটি ছড়িয়ে পড়ার আগেই অন্য সিনিয়র নেতারা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করেন। এ সময় সেখানে উপস্থিত ছিলেন জেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি ও বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার উপদেষ্টা অ্যাডভোকেট এ কে এম মাহবুবুর রহমান, জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক জয়নাল আবেদিন চানসহ বেশ কয়েকজন সিনিয়র নেতা-কর্মী।
পরে বগুড়া জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক জয়নাল আবেদিন চান বলেন, ‘ঘটনাটি তেমন কিছু না। আসলে কথা হয়েছে। কোনো বিতন্ডা হয়নি। ’ অ্যাডভোকেট এ কে এম মাহবুবর রহমান বলেন, ‘বিত-া বিষয়ক কিছু ঘটনা ঘটেছে বলে অনুমান করেছি। কিন্তু আমি লিফটের বাইরে ছিলাম বলে পুরো ঘটনা জানি না। ’
মতবিনিময় সভা : এদিকে মতবিনিময় সভায় বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, আমাদের ঐক্যবদ্ধ থাকতে হবে। ৩০ ডিসেম্বর দেশে প্রকৃতপক্ষে দেশে কোনো নির্বাচনই হয়নি, হয়েছে নির্বাচনের নামে প্রহসন। ওই নির্বাচন আমরা সম্পূর্ণরূপে প্রত্যাখ্যান করেছি। আওয়ামী লীগ সরকারের অধীনে কোনো নির্বাচনই সুষ্ঠু হবে না। দেশে এখন এক অস্বাভাবিক অবস্থা বিরাজ করছে। দেশের মানুষ মন খুলে কথা পর্যন্ত বলতে পারছে না। নির্বাচনের আগে সারা দেশে দলের নেতা-কর্মীদের ওপর যে দমন-পীড়ন অত্যাচার নির্যাতন হয়েছে, নির্বাচনের পরও তা অব্যাহত রয়েছে। বগুড়া সদর উপজেলা বিএনপি সভাপতি মাফতুন আহম্মেদ খান রুবেলের পরিচালনায় এ সভায় বক্তব্য রাখেন বগুড়া জেলা বিএনপি সভাপতি ভিপি সাইফুল ইসলাম। সভায় উপস্থিত ছিলেন বগুড়া জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক জয়নাল আবেদিন চান, সাবেক সভাপতি পৌর মেয়র অ্যাডভোকেট মাহবুবুর রহমান, সাবেক সংসদ সদস্য হেলালুজ্জামান তালুকদার লালু, জি এম সিরাজ, রেজাউল করিম বাদশা, মাহবুব-উল শাহীন, মাহবুবুর রহমান বকুল, হামিদুল হক চৌধুরী হিরু, আবদুল খালেকসহ সিনিয়র নেতারা।






Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked as *

*